বিবিধ

লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাব সদস্যদের সমুদ্র সৈকত ভ্ৰমণ ছিল আনন্দদায়ক।

লন্ডন থেকে শেখ মহিতুর রহমান বাবলু : আমাদের মিটিং পয়েন্ট ইস্ট লন্ডন মসজিদ । ২৫ অগাস্ট রোববার। সকাল ৮.২০। আকাশ থেকে নেমে আসছে গা ভাসানো মিষ্টি মিষ্টি রোদ। লন্ডনের বাংলাদেশী পাড়া খ্যাত হোআইট চ্যাপেলের ইস্ট লন্ডন মসজিদের সামনে গিয়ে দেখি সেখানে একটা সাদা বাস দাঁড়িয়ে আছে।পাশে রেজাউল করিম মৃধা।তার গলায় ঝুলছে বাঁশি । হাতে একগাদা কাগজ।ভ্রমণ সঙ্গীদেরকে তিনি নাম দেখে বাসে উঠাচ্ছেন। ভীষণ ব্যাস্ত মৃধা। মেজাজও গরম।
কিছুক্ষন পর নীল রঙের আরো একটা বাস এসে দাঁড়ালো রাস্তার ওপারে।ইতিমধ্যে অনেকেই চলে এসেছেন। সব যাত্রীকে বাসে চেপে বসতে বলা হলো। বাস ছাড়বে ন’টায়। যথা সময় সবাই এলেও দুটো ফ্যামিলির দেখা নেই । টেলিফোনে যে যার মতো যোগাযোগ করছে তাদের সাথে। আয়োজকদের চোখে মুখে বিষাদের চাপ দৃশ্যমান ।
দেখতে দেখতে পার হলো প্রায় ১ ঘন্টা। অবশেষ ঐ পরিবার দুটি এসে পৌঁছালো সকাল ১০ টার দিকে । দুটো বাস প্রায় শতাধিক পরিবার নিয়ে ছুটে চললো লন্ডন থেকে ৮১ মাইল দূরে কেন্ট সীমান্ত সংলগ্ন ইস্ট সাসেক্স এর ক্যাম্বার সমুদ্র সৈকতের উদ্দেশ্যে ।প্রাইভেট গাড়িতেও যাচ্ছেন অনেকে।

এটা লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাবের বার্ষিক ট্রিপ।প্রতিবছর তারা এ ধরণের আয়োজন করে। ব্রিটেনে অবস্থানরত বাংলা গণমাধম কর্মীদের জন্য। দিনটির অপেক্ষায় থাকে অনেকে। আমি নিজেও।

নীল বাসে আমার জাগা হলো । সাথে পরিবার নেই। তারা গ্রীষ্মের ছুটি কাটাতে ইতালি ও জার্মান চষে বেড়াচ্ছে।
সাদা বাসের দায়িত্বে ছিলেন সভাপতি এমদাদুল হক চৌধুরী, ট্রেনিং সেক্রেটারী ইব্রাহিম খলিল এবং ইভেন্ট সেক্রেটারী রেজাউল করিম মৃধা।নীল বাসে সাধারন সম্পাদক মোহাম্মদ জোবায়ের ও কমিউনিকেশন সেক্রেটারী এম এ কাইয়ুম।

কিছুক্ষনের মধ্যে পরিবেশন করা হলো সকালের নাস্তা। সেটা শেষ হতে না হাতেই আবিষ্কার হলো বাসে এসি কাজ করছে না। ড্রাইভারকে বলা হলো । কিন্তু এই মুহূর্তে সেও অসহায় ,কিছুই করার নেই তার । এদিকে আহমদ ম‌য়েজ ভাই ক্ষেপে একাকার।
কয়েকদিন ধরে বৃষ্টির দেখা নেই। উত্তপ্ত তাপমাত্রা। প্রচন্ড গরমে দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে সবার ভ্রমণ । বাসের জানালা খোলা যায় না। ভিতরে ভ্যাপসা গরমের কারণে ভ্রমণসঙ্গীদের প্রাণ প্রায় ওষ্ঠাগত।শরীরে গরম লাগছে আগুনের হলকার মতো। কোথাও যেন স্বস্তির ছোঁয়া নেই। শিশু ছাড়াও গরমে সবচেয়ে বেশি কাবু হয়ে পড়ছেন মহিলারা।অনেকে মাথায় ও মুখে পানি ছিটাচ্ছে।রাকিব ভাইয়ের ছোট্ট সোনামনি ইলমার মুখ গরমে লাল হয়ে গেছে। এদিকে পর্যাপ্ত পানিও নেই সবার সাথে।
আহমদ ম‌য়েজ ভাইয়ের বিরামহীন প্রতিবাদের মুখে পিছন থেকে জুবায়ের ভাই উঠে এলেন। ঠান্ডা মেজাজে কথা বললেন ড্রাইভারের সাথে। সাফ জানিয়ে দিলেন এ বাসে আমরা ফিরছি না। কোম্পানিকে বলে নতুন বাসের ব্যবস্থা করতে বললেন তিনি।

পথের এই বিড়ম্বনাকে লাঘব করতে ওমর ফারুক, জিয়াউর রহমান সাকলাইন ও আরো অনেকে গান ধরলো । কিন্তু ভাগ্য দেবী সেখানেও সুপ্রসন্ন হলেন না। বাসের সাউন্ড সিস্টেমে গন্ডগোল। মাইক্রোফোন ওয়ান করলেই প্রচন্ড আওয়াজ হচ্ছে। এবার সত্যি সত্যি বিরক্তি উগরে দিলো ভ্রমণ সঙ্গীরা। ভ্রমণের এটাই সম্ভবত সবথেকে খারাপ দিক।

আমাদের দুরাবস্থা সাদা বসে জানানো হলো। কেউ ছবি তুলে কেউ ভিডিও করে পাঠাচ্ছে সেখানে।মুঠো ফোনে বার্তার লেনদেন তো আছেই।
ওমর ফারুক ও সঙ্গীরা খালি গলায় গেয়ে চলেছেন । মাঝে মাঝে মোবাইলেও বেজে উঠছে ধামাকার সব গান। অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি ভুলে থাকার চেষ্টা আর কি।

ইস্ট লন্ডন থেকে ক্যাম্বার সমুদ্র সৈকত দুই ঘন্টার পথ। ইতিমধ্যে তিন ঘন্টা পার হয়ে গেছে। আমরা গন্তব্যের বেশ কাছে। মোটর ওয়ে থেকে নেমে আমাদের বাস চলছে আঁকা বাঁকা সরু পথ ধরে ।যতদূর চোখ যায় শুধু গাড়ির মিছিল ।কচ্ছপের গতিতে চলছে আমাদের বাস। কেউ কেউ বাস থেকে নেমে হেটে চলেছেন । রাস্তার ডান দিকে সনামধন্য বিশাল রয় গল্ফ ক্লাব।বাদিকে হাজার হাজার হলিডে কটেজ, ক্যারাভান ইত্যাদি।

অবশেষে সমুদ্র সৈকতের মূল ফটকে এসে পৌছালো আমাদের বাস । ড্রাইভার নামতে বললেন। জুবায়ের ভাই কথা বলে জানতে পারলেন সাদা বাসটি আরো সামনে গিয়ে দাঁড়িয়েছে। কিছু না বুঝার আগেই আমরাও ছুটলাম সেদিকে। দেখতে দেখতে মূল সৈকত এলাকা পার হয়ে গেলো। বিপদ এখনো আমাদের পিছু ছাড়েনি বুজতে বাকি রইলো না।

গাড়ির লম্বা লাইন ঠেলতে ঠেলতে একসময় দেখা মিললো সাদা বাসের। সেটাও পার্কিং করার জন্য উপযুক্ত জাগা নয়। তাড়া তাড়ি বাস থেকে নামতে বললেন ড্রাইভার। দুপুরের খাবার ,বিভিন্ন ইভেন্ট এর জন্য পুরস্কার ,বাচ্ছাদের পুশ চেয়ার ,সকলের গাট্টি বোস্কা এতো সব নিয়ে কোথায় ঠাই মিলবে আমাদের ?

সাদা বাসে আনন্দ ফুর্তি হয়েছে বেশ । সেখানে এসি থাকলেও পায়ের কাছে চলছিল হিটার বললেন অনেকে। সুতরাং ঐ বাসেও খুব শান্তি ছিল বলা যাবে না।

পশ্চিমাদের কাছে রৌদ্রদীপ্ত দিনগুলোর একটা বিশেষ কদর আছে। একঘেয়েমি শীত প্রধান অথবা শুষ্ক আবহাওয়ায় অভ্যস্ত মানুষগুলো তাই গরম আবহাওয়ার ছোঁয়া পেতে দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসতে মোটেও দ্বিধা করে না। আবহাওয়া, মানুষ এবং পরিবেশ সবই যেন তাদের কাছে নতুনত্ব নিয়ে আসে। এরা সাধারণত সমুদ্র সৈকতে আসে একটু উষ্ণ রৌদ্র স্নান ও নোনা পানির স্বাদ পাবার জন্যে। প্রকৃতির কাছে নিজেকে খোলা মেলা তুলে দেবার জন্যে।এবার গ্রীষ্মে ব্রিটেনের আবহাওয়া তাদের নিরাশ করেনি। গোটা গ্রীষ্ম জুড়ে প্রকৃতি তার সীমাহীন বৈচিত্র্য দিয়ে বারবার তাদের মন জয় করেছে।

একে তো গ্রীষ্মের ছুটি তার উপর সুন্দর আবহাওয়া। সব মিলিয়ে আজ বুঝি কেউ আর বাসায় নেই। সবাই ছুটে এসেছে সমুদ্র সৈকতে। গন্তব্যে এসে এমনি মনে হচ্ছিলো আমার।

পশ্চিমারা ভীষণ ভ্রমণ পিপাসু। ছুটি পেলেই তারা আর ঘরে থাকতে চায়না।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker