জাতীয়

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদন নিয়ে যা ভাবছে দুই সিটি করপোরেশন

বছরের শুরুতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে নগরজুড়ে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাবের সতর্কতা জারি করা হলেও তা আমলে নেয়নি ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন। সম্প্রতি মন্ত্রণালয়ের দ্বিতীয় প্রতিবেদনে ডেঙ্গু মশা ছয়গুণ বৃদ্ধি পাওয়ার তথ্য উঠে আসে। বিষয়টি মৌখিকভাবে স্বীকার করলেও দায় এড়াতে চায় দুই সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ। তবে প্রতিবেদন অনুযায়ী ডেঙ্গু মোকাবিলায় কাজ শুরু করার কথা জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। বিশেষজ্ঞদের দাবি, শুরুতেই দায়িত্বপ্রাপ্ত দুই সিটি করপোরেশন যদি বিষয়টি আমলে নিতো তাহলে এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হতো না। এ কারণেই ডেঙ্গু রোগের প্রাদুর্ভাব বেড়েছে।
স্বাস্থ্য অধিদফতরের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বর্ষা শুরুর আগে প্রাপ্তবয়স্ক এডিস মশার সংখ্যা যা ছিল বর্ষায় তা বেড়ে ছয়গুণ হয়েছে। পাশাপাশি মশার লার্ভাও বেড়েছে কয়েকগুণ। এ কারণেই দেখা দিয়েছে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব। বিষয়টি দ্রুত নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে আগামী দিনগুলোতে মশার সংখ্যা আরও বাড়বে। গত ১৭ জুলাই থেকে শুরু হওয়া এ জরিপ শেষ হয়েছে ২৮ জুলাই। ১২ দিন ধরে পরিচালিত এই জরিপে এডিস মশা ও তার লার্ভা বৃদ্ধির চিত্র উঠে আসে। দুই সিটি করপোরেশন এলাকার এক হাজার বাড়ি থেকে নমুনা সংগ্রহ করে জরিপকারী সংস্থা স্বাস্থ্য অধিদফতর। প্রাথমিক তথ্যে দেখা যায়, প্রায় অর্ধেক বাড়িতে বয়স্ক এডিস মশার ঘনত্ব ২০৭টি যা প্রথম জরিপ চলাকালীন ৩ মার্চ থেকে ১২ মার্চ পর্যন্ত ছিল ৩৬টি। পাশাপাশি এডিস মশার লার্ভার সংখ্যাও বেড়েছে।
প্রথম জরিপে দেখা গেছে, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে মশার ঘনত্ব ছিল ২৬টি, উত্তরে ২১টি। নতুন জরিপে দেখা গেছে, দক্ষিণে এর ঘনত্ব বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭৯টি এবং উত্তরে ৫৭টি। গবেষণায় অধিকাংশ এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গেছে পরিত্যক্ত টায়ারে জমে থাকা পানিতে, প্লাস্টিকের ড্রামে, বালতি, খোলা ট্যাঙ্ক ও ফুলের টবে।
ডেঙ্গু মশা বৃদ্ধির জন্য দায়ী কে- এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেন, ‘দায়-দায়িত্ব কার সেটি বলছি না। তবে ডেঙ্গুর ভয়াবহতা বৃদ্ধি পেয়েছে। আমরা সর্বশক্তি দিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। আমরা যে ওষুধ ব্যবহার করছি সেটি পুরোপুরি অকার্যকর নয়। আংশিক সমস্যা রয়েছে। ওষুধ পরিবর্তনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রয়োজনে বিমানে করে বিদেশ থেকে ওষুধ আনা হবে।’
ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. শরীফ আহমেদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রতিবেদন আমলে নিয়েছি। গতকাল প্রতিবেদনটি পাওয়ার পর সে অনুযায়ী কাজ শুরু করেছি। স্বাস্থ্য অধিদফতর আমাদের ১১টি ওয়ার্ডে ডেঙ্গুর অস্তিত্ব খুঁজে পায়নি। প্রতিবেদন অনুযায়ী আমাদের ওয়ার্ডগুলোকে তিনটি ক্যাটাগরিতে ভাগ করে কাজ শুরু করেছি।’
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা সব দফতরকে নিয়ে কাজ করতে চাই। জনগণকে নিয়ে ডেঙ্গু মোকাবিলা করতে চাই। বর্তমান পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য আমরা আরও আধুনিক উপায়ে কাজ করবো। প্রতিটি দফতরের সঙ্গে বসবো। বছরের বিশেষ মুহূর্তে নয়, ৩৬৫ দিন আমরা কাজ করবো।’ তিনি বলেন, ‘ডেঙ্গু নিয়ে একটি সেল গঠন করতে চাই। এটা এখন সময়ের দাবি। এ নিয়ে আধুনিক গবেষণা করতে হবে। পাশের দেশে প্রতিটি ওয়ার্ডে কমপক্ষে ২০ থেকে ২৫ জন করে কর্মী রয়েছে। কিন্তু সেটা আমাদের নেই। আমাদের জনবল ও যন্ত্রপাতি অপ্রতুল। এ সমস্যার সমাধান করতে হবে।’
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কীটতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক কবিরুল বাশার বলেন, ‘স্বাস্থ্য অধিদফতর যেসব প্রতিবেদন দিয়েছে সেটি যদি দুই সিটি করপোরেশন আমলে নিতো তাহলে আজকে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হতো না। স্বাস্থ্য অধিদফতরের এই প্রতিবেদন তৈরির দায়িত্ব ছিল সিটি করপোরেশনের। কিন্তু তারা তা করেনি। তারা ভেবেছিল আজকের এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে না।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker