সাহিত্য ও বিনোদন

‘প্রিয়দর্শিনী সম্মাননা’য় মৌসুমী, শ্রেষ্ঠত্ব’র পুরস্কার আয়াশের হাতে

নন্দিত জনপ্রিয় নায়িকা মৌসুমীকে অনেক আগে থেকেই প্রিয়দর্শিনী নামে বিশেষায়িত করা হয়ে আসছে। কিন্তু তার এই বিশেষ বিশেষণটি’কে বিশেষভাবে এতোদিন সাংগঠনিক কোন স্বীকৃতি দেয়া হয়নি। এবারই প্রথম সাংবাদিক অভি মঈনুদ্দীনের উদ্যোগে সাঁকো টেলিফিল্ম স্টার অ্যাওয়ার্ড ২০১৯’এ মৌসুমীকে ‘প্রিয়দর্শিনী সম্মাননা’য় ভূষিত করা হলো। গেলো বৃহস্পতিবার রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে সাঁকো টেলিফিল্মের তেইশ’তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে চিত্রনায়িকা, চলচ্চিত্র পরিচালক মৌসুমীকে ‘প্রিয়দর্শিনী সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।

তার হাতে এই সম্মাননা তুলে দেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত গীতিকবি, চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজক, কাহিনীকার, পরিবেশক গাজী মাজহারুল আনোয়ার ও আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন গায়িকা রুনা লায়লা। মূলত তারা দু’জনই ছিলেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি। প্রিয়দর্শিনী মৌসুমীর ‘প্রিয়দর্শিনী সম্মাননা’ যখন তার হাতে তুলে দেয়া হয় তখন হলভর্তি আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে উচ্ছাস ছড়িয়ে পড়ে। এমন সম্মাননা পেয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন মৌসুমী।

প্রিয়দর্শিনী মৌসুমী বলেন, ‘প্রিয়দর্শিনী বিশেষণটি শ্রদ্ধেয় প্রয়াত সাংবাদিক আওলাদ ভাইয়ের দেয়া ছিলো। এরপর থেকে আমাকে নিয়ে সংবাদ লেখার ক্ষেত্রে আমার সাংবাদিক ভাই বোনেরা প্রিয়দর্শিনী বিশেষণটির ব্যবহার শুরু করেন। আমার ফ্যান, ফলোয়ার্সরাও এই বিশেষণ ব্যবহার শুরু করে। কিন্তু প্রিয়দর্শিনী সম্মাননা’য় এভাবে অভি’র উদ্যোগে সাঁকো টেলিফিল্ম আমার দু’জন শ্রদ্ধার ব্যক্তিত্ব কর্তৃক ভূষিত করবে তা আমার কল্পনাতেও ছিলোনা। সত্যিই প্রিয়দর্শিনী বিশেষণটি যেন আজ পরিপূর্ণতা পেলো। অনেক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা সাঁকো টেলিফিল্মকে।’

ছোট্ট বয়সেই জীবনের প্রথম শ্রেষ্ঠত্বর পুরস্কার গ্রহন করছে আয়াশ জীবন্ত কিংবদন্তী রুনা লায়লার হাত থেকে

এদিকে গেলো বছর ঈদে শিহাব শাহীনের নির্দেশনায় ‘বিনি সুঁতোর টান’ নাটকে এই সময়ের জনপ্রিয় অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব’র ছেলে জায়ান ফারুক আয়াশ অপূর্ব’রই ছেলের চরিত্রে অভিনয় করে দেশ জুড়ে সাড়া ফেলেছিলেন। অল্প বয়সেই অসাধারণ অভিনয়ের স্বীকৃতিস্বরূপ আয়াশের হাতে শ্রেষ্ঠ শিশুশিল্পীর পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। এই সময়ে আয়াশের সঙ্গে ছিলেন আয়াশেরই মা নাজিয়া হাসান অদিতি। পূর্ব সিডিউল অনুযায়ী শুটিং-এ থাকায় অপূর্ব তার জীবনের অন্যতম শ্রেষ্ঠ এই মুহুর্তে উপস্থিত থাকতে পারেননি। তবে ছেলের জীবনের প্রথম পুরস্কার প্রাপ্তি এবং প্রথম পুরস্কার বরেণ্য গাজী মাজহারুল আনোয়ার ও রুনা লায়লার কাছ থেকে গ্রহণ করায় আয়াশের মা অদিতি ভীষণ আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। শ্রেষ্ঠত্বর পুরস্কার হাতে নিয়ে আয়াশ চুপচাপ বসেছিলো।

অদিতি বলেন, ‘আয়াশ তার পুরস্কারটি হাতে পেয়ে হাতে নিয়েই চুপচাপ বসেছিলো। আয়াশ যেমন খুশি , তারচেয়েও বেশি খুশি তার বাবা, আমি এবং আমাদের পরিবার। সাঁকো টেলিফিল্মের প্রতি আমাদের পরিবার কৃতজ্ঞ। সবাই আয়াশের জন্য দোয়া করবেন যেন আল্লাহ তাকে সুস্থ রাখেন, মানুষের মতো মানুষ যেন হতে পারে।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker